সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

| ৯ বৈশাখ ১৪৩১

Campus Bangla || ক্যাম্পাস বাংলা

ইবির সহযোগী অধ্যাপককে প্রভাষকে পদাবনতি, প্রতিবাদ

ইবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭:৫৯, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ইবির সহযোগী অধ্যাপককে প্রভাষকে পদাবনতি, প্রতিবাদ

ইবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

ইসলামী বিশ^বিদ্যালয়ের (ইবি) ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. বখতিয়ার হাসানকে প্রভাষক পদে পদাবনতি দেওয়া হয়েছে। নিয়োগ নির্বাচনী বোর্ডে সদস্যদের সঙ্গে ‘অশোভন আচরণ’ করার অভিযোগে তাকে পদাবনতি দেওয়া হয়েছে। গত ১২ ফেব্রুয়ারী ২৬২ তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রবিবার বিশ^বিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানা গেছে। এ ঘটনায় বিশ^বিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু পরিষদ শিক্ষক ইউনিট তীব্র ক্ষোভ ও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে। একই দাবিতে ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম জানিয়ে নওগাঁ জেলা ছাত্র কল্যাণ সমিতি মানববন্ধন করেছে।

অফিস আদেশে বলা হয়েছে, ২০২২ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের অনুষ্ঠিত প্রভাষক পদে নিয়োগ নির্বাচনী বোর্ডের সভা চলাকালে বিশেষজ্ঞ সদস্যসহ নিয়োগ নির্বাচনী বোর্ডের অন্যান্য সদস্যের সাথে ড. বখতিয়ার হাসান (বিভাগের তৎকালীন সভাপতি) অশোভন আচরণ করেন। এ বিষয়ে একজন বিশেষজ্ঞ সদস্যের লিখিত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অভিযোগের সত্যতা পায় এবং সে মর্মে রিপোর্ট প্রদান করেন।

পরবর্তীতে তদন্ত কমিটির রিপোর্টটি গত ১২ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত ২৬২তম সিন্ডিকেট সভায় উপস্থাপন করা হয়। সিন্ডিকেট সভা তদন্ত কমিটির রিপোর্ট গ্রহণ করে ওংষধসরপ টহরাবৎংরঃু বসঢ়ষড়ুববং বভভরপরবহপু ধহফ ফরংপরঢ়ষরহব ৎঁষবং এর ৩ (সি) ধারায় সংশ্লিষ্ট ৯ এর-৪ ধারার উপধারা (ফ) অনুযায়ী সিন্ডিকেট তার বর্তমান পদ (সহযোগী অধ্যাপক) অবনমন করে প্রভাষক পদে প্রারম্ভিক বেতন (২২০০০-৫৩০৬০ টাকা) নির্ধারণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

এ বিষয়ে ড. বখতিয়ার হাসান বলেন, আমার সাথে এটা অন্যায় করা হয়েছে এবং আইন অনুযায়ী হয়নি। কেউ চোখ বন্ধ করে দেখলেও বুঝতে পারবে। বিষয়টি হাইকোর্টে মামলাধীন রয়েছে। একটি স্থগিতাদেশও আছে। তাছাড়া নিয়োগ বোর্ডের সদস্য হয়ে আমার দ্বিমত পোষণ করার অধিকার রয়েছে। তারা অশোভন আচরণ বললেও তার ব্যাখা দিতে পারেনি।

এদিকে ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রতিবাদ জানিয়েছে বঙ্গবন্ধু পরিষদ শিক্ষক ইউনিট। সংগঠনটির সভাপতি অধ্যাপক ড. কাজী আখতার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. তপন কুমার জোদ্দার স্বাক্ষরিত একটি বিবৃতিতে এ তথ্য জানা গেছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, যেকোন নিয়োগ প্রক্রিয়ায় নিয়োগ বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে মতপার্থক্য কিংবা মতভিন্নতা থাকতেই পারে। যে ধারায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বঙ্গবন্ধু পরিষদ শিক্ষক ইউনিটের একজন সম্মানিত সদস্যকে শান্তি প্রদান করেছে সেটি আইনের শাসনের পরিপন্থী এবং ব্যক্তি প্রতিহিংসার বহিঃপ্রকাশ। অনতিবিলম্বে এধরণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের জোরালো দাবি জানাচ্ছি।

মানববন্ধন: এ ঘটনার প্রেক্ষিতে মানবন্ধন করেছে নওগা জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতি। রবিবার দুপুর ২টার দিকে প্রশাসন ভবনের সামনে তারা এ কর্মসূচি পালন করেছে। এ কর্মসূচিতে তারা প্রশাসনের সিদ্ধান্তের প্রতি তীব্র নিন্দা জানিয়ে এটি প্রত্যাহার চেয়ে ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে। এ কর্মসূচিতে সংগঠনটির সভাপতি বোরহান উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক রাফসান জানি, সাংগঠনিক সম্পাদক মারুফ হোসেন সহ সংগঠনটির অন্তত ৩০ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

এআই