বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

| ৬ আষাঢ় ১৪৩১

Campus Bangla || ক্যাম্পাস বাংলা

যুক্তরাষ্ট্রে অধ্যাপক-শিক্ষার্থীদের গ্রেপ্তারে নিন্দা উপাচার্যের

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:২৭, ১৪ মে ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্রে অধ্যাপক-শিক্ষার্থীদের গ্রেপ্তারে নিন্দা উপাচার্যের

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অধ্যাপক এবং শিক্ষার্থীদের গ্রেপ্তার ও নির্যাতনের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। এসব ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের যে সব বিশ্ববিদ্যালয় র‌্যাংকিং এ সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে পৃথিবীর দেশে দেশে সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এখন রাজপথে রয়েছে।

তিনি বলেন, ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্টিভ তামারি, ডার্টমাউথ কলেজের অধ্যাপক আন্যিলিস অর্লেকসহ ৫০ জন অধ্যাপককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হাজার হাজার শিক্ষার্থীকে নির্যাতন ও কারারুদ্ধ করা হয়েছে। এসব শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের কারো কারো পাজর ভেঙে গেছে। অমানবিক নির্যাতন করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসন। এ ঘটনায় আজকে আমরা লজ্জিত, ক্ষুব্ধ এবং তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছি।

উপাচার্য বলেন, কেন ৫০ জন অধ্যাপককে মার্কিন পুলিশের গ্রেপ্তার করতে হল? নিশ্চয়ই আপনার ব্যবস্থাপনায় এমন ত্রুটি আছে যেকারণে অধ্যাপকরা রাস্তায় নেমে আসতে বাধ্য হয়েছেন।

১৪ মে, মঙ্গলবার রাজধানীর মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজ এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের উদ্যোগে সারাদেশের আইডিজিপ্রাপ্ত ১২০টি সরকারি-বেসরকারি কলেজের অধ্যক্ষবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন উপাচার্য ড. মশিউর রহমান।

মানবিক ও যুদ্ধহীন পৃথিবী আমাদের কাম্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা এমন পৃথিবীর চাই না যেখানে একজন প্রফেসর রাস্তায় পুলিশি নির্যাতন সয়ে চিৎকার করে বলে ‘আই অ্যাম অ্যা প্রফেসর’। অন্তত বাংলাদেশের কোনো প্রফেসরকে একথা বলতে হয় না।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য বলেন, আমরা চতুর্থ শিল্পবিপ্লব এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর কথা বলছি। আমরা বলছি পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নত বিশ্বে আমাদের উৎকর্ষতা শীর্ষে। সেই সময়ে ২০২৪ সালে ৫০ জন অধ্যাপককে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মত দেশ গ্রেপ্তার করে এবং শিক্ষার্থীরা ক্লাস রুম ছেড়ে রাজপথে নেমে আসে। যেই শিক্ষার্থীরা সবচেয়ে বেশি ইকুইপ্ট, যাদের ক্লাসরুমে কোনো ঘাটতি নেই, কোনো সংকট নেই। সর্বাধিক আধুনিকতায় সজ্জিত যেই ক্লাসরুম। যেখানে পৃথিবীর সর্বোচ্চ মেধাবী শিক্ষকরা পড়ায় সেই ক্লাসরুমের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা রাজপথে। শিক্ষকরা পুলিশি নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের এই যুগে কী তা হওয়ার কথা? কিন্তু হচ্ছে। পৃথিবীর অন্য কোথাও শিশু নির্যাতন, মাকে হত্যা, বাবাকে হত্যা, যুদ্ধাস্ত্রের ব্যবহার, মাদকের ব্যবহার চলছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষাসচিব সোলেমান খান, বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক আবদুস সালাম হাওলাদার, স্নাতকোত্তর শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্রের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বিন কাশেম, কারিকুলাম উন্নয়ন ও মূল্যায়ন কেন্দ্রের ডিন প্রফেসর ড. মো. মনিরুজ্জামান, সিইডিপির ডিপিডি আব্দুর রহীম, মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজের অধ্যক্ষ শারমিনা পারভীনসহ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সিইডিপির আইডিজিপ্রাপ্ত ১২০টি কলেজের অধ্যক্ষবৃন্দ।