মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

| ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০

Campus Bangla || ক্যাম্পাস বাংলা

শিক্ষক আসিফের চাকুরিচ্যুতি: যা বলল ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৯:৩০, ২৯ জানুয়ারি ২০২৪

শিক্ষক আসিফের চাকুরিচ্যুতি: যা বলল ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়

ফাইল ছবি

পাঠ্যপুস্তকে ‘শরীফ থেকে শরীফা’ গল্পের পাতা ছিঁড়ে ফেলায় ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চাকরি হারিয়েছেন শিক্ষক আসিফ মাহতাব। এ ঘটনায় দেশ জুড়ে শিক্ষক আসিফ মাহতাবের পক্ষে ব্যাপক জনসমর্থন সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি ব্র্যাক ও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় বয়কটের ডাকও পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এমন অবস্থায় নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করেছে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, সকল উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি সব মত ও আদর্শের জন্য সহনশীলতা ও সম্মানের ভিত্তিতে গঠনমূলক আলোচনা, বিতর্ক এবং পারস্পরিক মতবিনিময়ে বিশ্বাস করে।

কিন্তু ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে জাতীয় সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি সম্পূর্ণরূপে অগ্রহণযোগ্য আচরণ যা ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি  সমর্থন করে না। সাম্প্রতিক সময়ে জনাব আসিফ মাহতাব উৎস কর্তৃক বাংলাদেশ সরকারের প্রকাশিত সপ্তম শ্রেণির জাতীয় পাঠ্যবইয়ের পৃষ্ঠা ছেঁড়া এবং পাবলিক ফোরামে অন্যদেরকে একই কাজ করতে বলার ঘটনাটিকে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি একটি  ধ্বংসাত্মক কাজ বলে মনে করে এবং এ ধরনের অশিক্ষকসুলভ আচরণকে কোনোভাবেই সমর্থন করে না।

একারণে ব্যাক ইউনিভার্সিটি ২০২৪ সালের স্প্রিং সেমিস্টারের জন্য জনাব আসিফ মাহতাব উৎসকে খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে নতুন চুক্তি না দেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে ইউনিভার্সিটি জনাব মাহতাবকে এই সেমিস্টারের প্রস্তুতিমূলক কাজে তার সময় ও প্রচেষ্টার জন্য পারিশ্রমিক প্রদান করবে।

ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি সকল ক্ষেত্রে দেশের সংবিধান ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং দেশের প্রচলিত বিধিবিধান মেনে চলার বিষয়ে অঙ্গীকারাবদ্ধ। তাই ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি সমকামিতার প্রচার ও প্রসারের সাথে যুক্ত - সামাজিক মাধ্যমে কিছু মহলের এমন অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। তবে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি  প্রত্যেকটি মানুষের সমান অধিকার এবং সম্ভাবনা বিকাশের পথে সমান সুযোগ সৃষ্টিতে বিশ্বাস করে।